বনানীর ঘটনায় পুলিশের সফলতাই দেখছেন আইজিপি

 

অনলাইন ডেস্ক
প্যাসিফিকনিউজটোয়েন্টিফোর.কম

পুলিশের মহাপরিদর্শক শহীদুল হক বলেন, “বনানীর ঘটনায় যে মামলা হয়েছে তার এক সপ্তাহের মধ্যে আমরা মূল আসামিসহ দুইজনকে গ্রেপ্তার করতে পেরেছি। এটা পুলিশের সফলতা। দেশবাসীর এ ব্যাপারে পুলিশের প্রশংসা করা উচিত। ”

শনিবার রাতে পুলিশ কনভেনশন সেন্টারে বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ক্র্যাব) নবনির্বাচিত কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠানে একথা বলেন তিনি।

মাসখানেক আগে জন্মদিনের পার্টির কথা বলে বনানীর একটি হোটেলে দুই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে গত ৬ মে বনানী থানায় মামলা হয়।

পাঁচ আসামির মধ্যে সাফাত আহমেদ ও সাদমান সাকিফকে বৃহস্পতিবার সিলেট থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সাফাত আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদ এবং সাকিফ পিকাসো রেস্তোরাঁর অন্যতম মালিক মোহাম্মদ হোসেন জনির ছেলে।

তারা প্রভাবশালী পরিবারের সন্তান হওয়ায় মামলা নিতে পুলিশের গড়িমসি এবং মামলার পর আসামিদের ধরতে গাফিলতির অভিযোগ ওঠে। এ নিয়ে পুলিশের সমালোচনা করে বক্তব্য দেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যানও।

তবে আইজিপি বলছেন, “৪ মে অভিযোগ হয়েছে, আর ৬ মে মামলা রেকর্ড হয়েছে। মাঝখানে শুধু একদিন ছিল। ঘটনার প্রায় এক মাস ছয় দিন পর অভিযোগ হয়েছে। ”

তিনি বলেন, “নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের যথেষ্ট অপব্যবহার করা হচ্ছে। দেশব্যাপী শত্রুতা বা হয়রানি করা হচ্ছে এই আইনের মাধ্যমে। শতকরা ৫০ ভাগ মামলা সত্য প্রমাণিত হয় না।

“কাজেই এ ধরনের কোনো অভিযোগ যখন আসে তখন কেউ যাতে হয়রানি না হয় সে ব্যাপারে পুলিশ প্রাথমিকভাবে খোঁজ-খবর নিয়ে থাকে। আর খোঁজ- খবর নিতে গিয়ে এক-দুই দিন সময় যেতেই পারে। ”